আমাদের বাউফলনাজিরপুর

প্রকৌশলী ফজলে আলী’র মৃত্যুতে ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদের শোক

টাইমস বিডি নিউজঃ

বিশিষ্ট লেখক, সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী প্রকৌশলী এস এম ফজলে আলী’র মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের সেক্রেটারি এবং পটুয়াখালী জেলার গণমানুষের নেতা ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ।

 

এক শোক বার্তায় ড. মাসুদ মরহুম প্রকৌশলী এস এম ফজলে আলীর শিক্ষা বিস্তার, সমাজসেবাসহ বিভিন্ন অবদানের কথা স্মরণ করে শোক প্রকাশ করে বলেন, তার মৃত্যুতে জাতি একজন দেশপ্রেমিক, নিবেদিতপ্রাণ সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী ব্যাক্তিকে হারালো। বিশেষকরে আমরা পটুয়াখালী ও বাউফলবাসী একজন পিতৃতুল্য অভিভাবক হারালাম, যার অভাব কোনভাবেই পুরণীয় নয়।

 

ড. মাসুদ মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। তিনি মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে দোআ করেন, আল্লাহ যেন মরহুমের নেক আমল সমূহ কবুল করে তাকে জান্নাতবাসী করেন এবং তার পরিবার ও আত্মীয় স্বজনকে সবর করার তৌফিক দান করেন।

 

মরহুম প্রকৌশলী এস এম ফজলে আলী সোমবার দিবাগত রাতে রাজধানী ঢাকার বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। মৃত্যুকালে তিনি ০২ মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুমের নামাজে জানাজা আজ বাদ আসর রাজধানী ঢাকার খিলগাঁও এর গোড়ানে অনুষ্ঠিত হবে।

 

মরহুম প্রকৌশলী এস এম ফজলে আলী শিশুকাল থেকেই মেধাবী ছাত্র হিসেবে বাউফল নাজিরপুর এলাকার মানুষের কাছে সু-পরিচিত ছিলেন। ১৯৫১-৫২ সনে ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণীতে অধ্যয়নকালে তিনি পুরো বরিশাল অঞ্চলে মেধা তালিকায় ১ম স্থান অর্জন করেন। এভাবে তিনি স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নকালে জাতীয় মেধা তালিকায় স্থানসহ অসামান্য কৃতিত্ব অর্জন করেন। কর্মজীবনে তিনি বাংলাদেশ টেক্সটাইলস মিলস-এর মহাব্যস্থাপক হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন এবং পরবর্তিতে কেবিনেট সচিবের যুগ্ম-সচিব পদমর্যাদায় প্রাইভেটাইজেশন কমিশনে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় অবসর গ্রহণ করেন। তিনি ইনষ্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং ও বাংলা একাডেমির আজীবন সদস্য এবং কোরআন শিক্ষা সোসাইটির সাথে জড়িত ছিলেন। মরহুম ফজলে আলী একজন সমাজ সচেতন মানুষ ছিলেন। তিনি মেধাবী ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান, অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িতসহ নানাবিধ সামাজিক কর্মকান্ডে সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন। তিনি লেখক হিসেবেও নিজ প্রতিভার স্বাক্ষর রাখেন, তার লেখা প্রায় ৩ শতাধিক প্রবন্ধ বিভিন্ন পত্রিকায় ও বেশকিছু বই ইতোমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *