আন্তর্জাতিক

শিক্ষা সিলেবাসে কোরআন শরীফ বাধ্যতামূলক

রুশমি আক্তারঃ

 

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জাতির উদ্দেশে টেলিভিশনে ভাষণ দিয়েছেন। ঈদুল আযহার আগের রোববার রাতে দেয়া প্রথম ভাষণে তিনি দুর্নীতিগ্রস্ত দেশটির আমূল সংস্কারের ঘোষণা দিয়ে মানব সম্পদ উন্নয়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। পাকিস্তানে শিক্ষা সিলেবাসে পবিত্র কোরআন শরীফ বাধ্যতামূলক করতে আইন পাশ করারও অঙ্গীকার করেন। গতকাল আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা এএফপি এই খবর দিয়ে বলেছে, এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে দেয়া ভাষণে ইমরান খান একটি ইসলামি কল্যাণ রাষ্ট্র গড়ে তুলতে তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির কথা বার বার উল্লেখ করেন। তিনি বক্তব্যে শিশু যৌন হয়রানি বন্ধ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো কতগুলো বিষয় তুলে ধরেন। আর এসব প্রসঙ্গে দেশটির আগেকার প্রধানমন্ত্রীরা খুব কমই বলেছেন।
ইমরান খান কারো নাম উল্লে­খ না করে প্রতিবেশী দেশগুলোর সাথে পাকিস্তানের সম্পর্কোন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দেন। এছাড়া গোলযোগপূর্ণ বেলুচিস্তান প্রদেশ ও প্রতিবেশী আফগানিস্তানের সীমান্ত বরাবর বিভিন্ন উপজাতি এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নতি করারও অঙ্গীকার করেন।
তিনি বলেন, আমরা শান্তি চাই। কারণ শান্তি পুন:প্রতিষ্ঠা না করা পর্যন্ত পাকিস্তান উন্নতি লাভ করতে পারবে না। আমি দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করবো। এতে হয় দেশ বাঁচবে। না হয় দুর্নীতিগ্রস্ত লোকেরা বাঁচবে। প্রধানমন্ত্রী ইমরান দেশের কর ব্যবস্থার উন্নতি করার কথা উল্লে­খ করে এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় অর্থ ব্যয় করার কথা বলেন। পাকিস্তানে এখনো কম লোকই তাদের কর প্রদান করে। তবে বিশেষ করে ধনীদের ওপর কিভাবে করের হার বাড়ানো যায় তার কোন ব্যাখ্যা তিনি দেননি।
উল্লে­খ্য, ইমরান খানের নেতৃত্বে পাকিস্তানের দু’টি প্রতিষ্ঠিত দলের মধ্যে ক্ষমতার পালাবদলের ইতিহাসের অবসান ঘটালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *