অপরাধআন্তর্জাতিক

ঘৃণ্য সমকামকে ‘বৈধ’ ঘোষণা করল ভারত

সমকামিতার অধিকারকে বৈধতা দিয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। ঔপনিবেশিক আমলের ফৌজদারি আইনের একটি ধারা অবৈধ ঘোষণা করে বৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) এ রায় দেয়া হয়।

এ রায়কে ঐতিহাসিক উল্লেখ করে ভারতের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র বলেছেন, কেউ তার ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্যকে এড়িয়ে যেতে পারে না। এখনকার সমাজ ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্যের প্রশ্নে অনেক বেশি অনুকূল। ভারতের সংবিধান একজন সাধারণ নাগরিককে যেসব অধিকার দেয়, তার সবগুলোই এলজিবিটি কমিউনিটির প্রাপ্য। এ রায় ইতিহাস হয়ে থাকবে বলে আমরা মনে করছি।

এই রায়ে বলা হয়েছে, কেউ তার ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্যকে এড়িয়ে যেতে পারে না। এখনকার সমাজ ব্যক্তি স্বাতন্ত্র্যের প্রশ্নে অনেক বেশি অনুকূল। ভারতের সংবিধান একজন সাধারণ নাগরিককে যেসব অধিকার দেয়, তার সবগুলোই এলজিবিটি সম্প্রদায়গুলোর প্রাপ্য।

ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, স্বাভাবিক নিয়মের বিরুদ্ধে গিয়ে কেউ পুরুষ, নারী বা প্রাণীর সঙ্গে যৌন মিলন করলে তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বা দশ বছরের জেল হতে পারে। সেই সঙ্গে হতে পারে জরিমানা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, নরেন্দ্র মোদীর সরকার সুপ্রিম কোর্টে ৩৭৭ ধারা নিয়ে এই মামলায় নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করতে চায়নি। সরকারের অবস্থান জানাতে আদালতে বার বার সময় চেয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ। কিন্তু পার্লামেন্টে ৩৭৭ ধারা বাতিলের বিল আনতে চাইলে বিজেপি সে বিষয়ে আলোচনাই করতে দেয়নি।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০০৯ সালে দিল্লি হাই কোর্ট এক রায়ে ৩৭৭ ধারাকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করে। সেখানে বলা হয়, কেবল অপ্রাপ্তবয়স্ক ও ইচ্ছার বিরুদ্ধে যৌন মিলনের ক্ষেত্রে ওই আইন প্রয়োগ করা যাবে।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের ফৌজদারি দণ্ডবিধিতেও সমকামিতা দণ্ডনীয় অপরাধ বিবেচনা করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *