আন্তর্জাতিক

যে গ্রামে স্ত্রীকে ভাড়া দিয়ে উপার্জন করেন স্বামীরা!

টাকার প্রয়োজনে অনেকে অনেক কিছুই করতে হয়। তবে ব্যতিক্রমী কিছু ঘটনাও ঘটে যেগুলো টাকার জন্য করা হয়। আর আমরা এও জানি ব্যতীক্রম কখনও উদাহরণ হতে পারে না। তাই বলে যে গ্রাম সবাই একই ঘটনা ঘটায় সেটাতো আর ব্যতীক্রম হতে পারে না। যে গ্রামের কথা বলছি সে গ্রামে স্বামীর ইচ্ছাতে স্ত্রীকে ভাড়া নিয়ে যৌন কর্ম করা যায়। আর এই ঘটনা চলছে বছরের পর বছর ধরে।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মধ্যপ্রদেশের শিবপুরে গ্রামে এই নিষ্ঠুর রীতি চলছে। এখানে স্বামীদের মদতেই দেহ ব্যবসায় নামানো হয় স্ত্রীদের। সাধারণত ধনী পরিবারের ব্যক্তিরা এসে শিবপুর গ্রামের মহিলাদের ভাড়া করে যান। ভাড়ার সময়সীমা এক মাস থেকে প্রায় এক বছর পর্যন্ত। জানা গিয়েছে, ভাড়ার জন্য মহিলাদের ‘দাম’ এক হাজার টাকা থেকে শুরু হয়। ১০ টাকার স্ট্যাম্প পেপারেই চুক্তি হয়।

ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, সময়সীমা শেষ হয়ে গেলেও কোনও ব্যক্তি মহিলাদের স্বামীর সঙ্গে ফের চুক্তি করতে পারে। চুক্তি শেষ হয়ে গেলে মহিলাদের তাঁদের স্বামীর কাছেই ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

তবে মধ্যপ্রদেশ প্রথম নয়, এর আগে গুজরাত থেকেও এমন চিত্র সামনে এসেছে। ২০০৬ সালে গুজরাতের এক মহিলাকে তাঁর স্বামী মাসিক ৮ হাজার টাকার বিনিময়ে এক ধনী ব্যক্তির কাছে ভাড়া দিয়ে দেন। সেই ঘটনাকে ঘিরে প্রবল হইচই হয়েছিল দেশজুড়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *