জীবনযাপন

প্রেমের টানে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে প্রাচ্যের ভেনিস বরিশালে

ফেসবুকে পরিচয়। এরপর কথা, পরে ভিডিও কল। আর প্রেম। সেখান থেকে পরিণয়ের সিদ্ধান্ত। আর সেই টানে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া থেকে বরিশালে ছুটে এসেছেন এক তরুণী।

ওই তরুণীর সাম সারা মেকিয়েন। পেশায় সমাজকর্মী। আর বাংলাদেশি তরুণের নাম অপু মণ্ডল। পেশায় রঙ মিস্ত্রি। দুই জনই খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী।

সারা দেশে আসেন গত ১৯ নভেম্বর। দুই দিন পর বিয়ে করেন অপুকে। আর অপুর পরিবার আগে থেকেই সব জানত, তারা বিদেশি বধূকে অভ্যর্থনাও জানায় আন্তরিকভাবে।

সারা দেশে আসার আগেই বাংলা শিখে এসেছেন খানিকটা। অপুর স্বজনদের সঙ্গে কথাও বলেছেন। বিয়েও হয়েছে বাঙালি রীতি মেনে। আশীর্বাদ করেছেন চার্চের ফাদার।

দুইদিন ধরে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে দুই জন নগরীর বান্দ রোডের একটি হোটেলে উঠেন অপু ও সারা। এরপর তারা নিজ বাড়িতে ফিরেন।

এই খবর ছড়ানোর পর উৎসুক জনতার ভিড় জমেছে অপু মণ্ডলের বাসায়। অপু কাউনিয়া প্রধান সড়কের খ্রিষ্টান কলোনির রবীন মণ্ডলের দুই মেয়ে এবং এক ছেলের মধ্যে সবার ছোট।

অপু জানান, ২০১৭ সালের ১৯ নভেম্বর ফেসবুকে একটি গ্রুপের মাধ্যমে সারার সঙ্গে তার পরিচয়। এরপর থেকে নিয়মিত যোগাযোগ হতো। কথা হতো ভিডিও কলে। এভাবে কথা বলতে বলতে তারা পরস্পরকে ভালোবেসে ফেলেন। ব্যক্তিগত সম্পর্ক পারিবারিক সম্পর্কে রূপ নেয়।

গত সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের দিকে সারা এবং অপু উভয় পরিবারের সম্মতিতে একে অপরকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন।

বিয়ে করতে অপু যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার সুযোগ পাননি। আর কয়েক মাস ধরে ভিসা প্রসেসিং শেষে বাংলাদেশে এসে প্রেমিককে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন সারা।

গত ১৯ নভেম্বর সারা বাংলাদেশে আসেন। ওইদিন ঢাকায় বিমানবন্দরে অপুর সঙ্গে সারার প্রথম সরাসরি সাক্ষাৎ হয়। ওইদিনই তাকে নিয়ে বরিশাল রওয়ানা হন। পরদিন বরিশালে এসে পৌঁছালে সারাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানায় অপুর পরিবার।

অপুর মেঝ বোন স্কুল শিক্ষিকা সুমা রুৎ মণ্ডল জানান, সারা মেকিয়েন খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী। তারাও খ্রিষ্টান। আর এই বিয়ে হয়েছে বাঙালি রীতি মেনে। গাঁয়ে হলুদ এবং আংটি পরিধানসহ বিয়ের নানা আনুষ্ঠানিকতা করা হয়েছে। এরপর আর্শীবাদ করেন চার্চের ফাদার। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার সময় সারা শাড়ি পড়েন।

সারা ভাঙা ভাঙা বাংলা বলতে পারেন। এ দেশের মানুষের ভালোবাসা এবং আন্তরিকতায় সারা মুগ্ধ বলেও জানান সুমা রুৎ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *