মতামত

“পারলে আমার বিকাশে কয়টা টাকা দাও প্রায়ই বলেন শহিদুল আলম তালুকদার”

“ধানের শীষে লাত্থি মার. আমুলীগ নেতার আনারশে সিল মার’
–শহীদুল আলম তালুকদার
!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!
কয়েকজন বুদ্ধি প্রতিবিন্ধী ইদানিং বাউফল বিএনপির ক্ষতিকর কীট পতঙ শহীদুল আলম তালুকদারকে নিয়ে ফেইসবুকে স্টাটাস দেয়। হয়তো উনারা জানেন না উনি বিএনপির টিকিটে একবার এমপি হয়ে দলের সাথে বেঈমানী করেছে বার বার। *ওয়ান এলেভেনের পর সংস্কারবাদী এই পাতিনেতা শহীদ জিয়া, তারেক রহমান ও আরাফাত রহমানকে প্রকাশ্যে ওশালিন ভাষায় গালি দিয়েছেন।* ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে বিএনপি তাকে নমিনেশ্ন না দিলে এই ভাইরাস নেতা ধানের শীষের বিরুদ্ধে আওয়ামিলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ফিরোজ আলমের পক্ষে – “ধানের শীষে লাত্থি মারো আনারশ মার্কায় সিল মারো স্লোগান দিয়েছিলএই কুলাংগার শহীদুল আলম তালুকদার। বাউফলের জনগন তাকে এমনই ঘৃনা জানিয়েছিল যে, কোটি টাকা আমুলীগের বিদ্রোহি প্রর্থীর কাছ থেকে খেয়ে নিজে মিছিল মিটিং করে মাত্র ৮ হাজার ভোট পেয়ে জামানত হারাতে হয়েছিল সেই প্রার্থীর। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেন শহীদুল আলমের কথায় দু’ চারশ ভোট হয়তো পেয়েছ ফিরোজ আলমের আনারশ * এরপর বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্দেশে তাকে বিএনপি থেকে বাদদেয়া হয়েছিল। এখন পর্যন্ত এই আনারশ খেকো ব্যক্তি থানা বিএনপিতো দূরের কথা তাতীদলের ইউনিয়ন সদস্যও হতে পারেন নি। *জাতীয় পার্টি থেকে আসা এই ব্যক্তি সারা বাংলাদেশে বিএনপির জয় জয়কার সময় বিএনপির ভোটে একবার এমপিও হয়েছিলেন। অথচ দলের সাথে বিশ্বাস ঘাতক এই বয়বৃদ্ধ ব্যক্তির জন্য কেউ কেউ ফেইসবুকে উকিঝুকি মারে। উনাদের সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, শহীদুল আলম তালুকদার প্রকাশ্যেই বলেছিলেন “এমপিতে এত টাকা আগে জানতাম না”। গত এক যুগে বিএনপির জন্য রাজপথে একটা মিছিল কিংবা জনসভার আলামত দেখান পারলে। বাউফলের সকলেই জানেন এই বিকাশ নেতার কথা! তিনি প্রায়শই মানুষকে ফোন করে বলেন ” পারলে আমার বিকাশে কয়টা টাকা পাঠাও”। * শহীদুল আলম যেই মামলায় সাজাভুক্ত আসামী সেটি কোন রাজনৈতিক মামলা না; সেটি হলো সেনাবাহিনী তার বাড়ির পুকুর থেকে রিলিফের চুরিকরা আত্মসাতকৃত গরীবের টিন উদ্ধার। বিএনপিকে কলংক এই শহীদুল আলম তালুকদারের নারী কেলেংকারীর তাজা খবর কিম্বা রাজনৈতিক অপকর্ম জানতে তিড়িং বিড়িং ক্লিক করুন। সকল বিএনপির কর্মী সমর্থকরা মনে রাখবেন-শহীদুল আলম তালুকদারের নাম বিএনপির খাতায়ও নেই’ আতালেও নেই। আর উনি রাজনীতিও করেন না। অতএব আলি আজম মার্কা এক শ্রেনীর রাজনৈতিক বকলমরা ভবিশ্যতে বিএনপির নাম ভাংগিয়ে এইসব শহীদুল আলমদের নিয়ে জিয়ার সৈনিকদের বিভক্ত করার অপচেস্টা না করার অনুরোধ করছি। অতএব সাধু সাবধান!

ফরিদুজ্জামান টিপুর টাইমলাইন থেকে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *