পাঁচমিশালী

অঝরে ডুকরে কাঁদলেন ইলিয়াস কাঞ্চন

‘যে সন্তানরা আজ নিরাপদ সড়কের দাবি নিয়ে রাস্তায় নেমেছে সেই কোমলমতি শিশুদের নিয়ে রাজনীতি শুরু হয়ে গেছে। চারদিকে নানা গুজব ছড়ানো হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মিশে যাচ্ছে সুযোগসন্ধানীরা। আমি তোমাদের জীবন নিয়ে শঙ্কিত, আমি চিন্তিত চিন্তিত।’

সোমবার (৬ আগস্ট) এক সংবাদ সম্মেলনে কথাগুলো বলার সময় অঝরে ডুকরে কেঁদে ফেলেন চিত্র নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। তার কান্নায় আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিক ও নিসচার অন্য নেতারা।

সোমবার (৬ আগস্ট) বিকেল ৫টায় নিরাপদ সড়ক চাই কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নিসচার জরুরি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপেক্ষিতে মন্ত্রিসভায় সড়ক পরিবহন আইন অনুমোদন ও অন্দোলনের দিকনির্দেশনামূলক নানা বিষয়ে বক্তৃতা করেন তিনি।

এসময় তিনি শির্ক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানাব, তারা নিরাপদ সড়কের দাবিটি মানুষের প্রাণের দাবিতে রূপান্তর করেছে। এক সপ্তাহ ধরে তারা লাগাতার আন্দোলন করছে। অবরোধ কর্মসূচি পালন করছে। চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে, সড়কে কত নৈরাজ্য ও বিশৃঙ্খলা রয়েছে। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে সরকার ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদেরও টনক নড়েছে।’

‘তবে এখন আমি শিক্ষার্থীদের ও যৌক্তিক এ আন্দোলন নিয়ে চিন্তিত। শুরু হয়েছে নোংরা রাজনীতি। যারা এ আন্দোলন নিয়ে ফায়দা লুটতে চান তা কতটা অমানবিক হতে পারে, তা আপনাদের অজানা নয়। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিয়ে রাজনীতি করতে পারে, সেটা ভাবতেও ঘৃণা হয়।’

২৫ বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রীকে হারিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন স্ত্রী বিয়োগের শোককে শক্তিতে পরিণত করে গড়ে তোলেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ নামে আন্দোলন। যে আন্দোলন আজ প্রতিটি ঘড়ে ঘড়ে প্রতিটি মানুষের প্রাণের দাবিতে পরিণত হয়েছে। আজ এই নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজপথে নেমেছে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। শুরু থেকে শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে ইলিয়াস কাঞ্চন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *