স্বাস্থ্য

লাল মাংসের মন্দ দিক

সাব্বির আহমেদঃ 

লাল মাংসের প্রধান ক্ষতি হলো এর উচ্চমাত্রার ট্রাইগ্লিসারাইড ও এলডিএল। এটি ক্ষতিকর কোলেস্টেরল হিসেবে পরিচিত। এই কোলেস্টেরল ধমনির প্রাচীর পুরু করে হৎপিণ্ডে রক্ত সঞ্চালন কমিয়ে দেয়। এভাবে একপর্যায়ে রক্তনালিতে ব্লক তৈরি হয়। এটি হদরোগের অন্যতম কারণ হয়ে দেখা দেয়।

লাল মাংসে বিশেষ ধরনের ইনফ্লামেটরি যৌগ থাকে। এটি পাকস্থলীর প্রদাহের জন্য দায়ী। এই যৌগ পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত্র ও বৃহদান্ত্রের ক্যানসারের জন্যও দায়ী। ফুসফুস, কোলন, প্রোস্টেট ও স্তন ক্যানসারেও ভূমিকা রাখে লাল মাংস।

সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতিদিন ১০০ গ্রামের বেশি লাল মাংস খান, তাদের হৃদরোগে মৃত্যুঝুঁকি ১৫ শতাংশ, ব্রেইন স্ট্রোকের ঝুঁকি ১১ শতাংশ এবং বৃহদন্ত্র ও প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি প্রায় ১৭ শতাংশ বেশি।

তাই প্রিভেনটিভ রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বললেন, চর্বি বাদ দিয়ে শুধু মাংস খেতে হবে। তবে পরিমাণে অল্প খেতে হবে।
এই অপরিমিত খাবার খেলে প্রেসার বৃদ্ধি, ডায়রিয়া, কলেরার মতো অসুখ হতে পারে। সেজন্য লাল মাংস খেতে সতর্কতার বিকল্প নেই বলে অভিমত ডাক্তারদের।

রান্নার সময় মাংসের গায়ে লেগে থাকা জমাট চর্বি পুরোটাই তুলে ফেলুন। বিশেষ পদ্ধতিতে মাংস সেদ্ধ করে চর্বি ঝরিয়ে নিতে পারেন।

যত দ্রুত সম্ভব মাংস চুলায় বসান। কাঁচা মাংসে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ হয় খুব দ্রুত। আর ফ্রিজে রাখতে চাইলে স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে যত দ্রুত সম্ভব মাংস সংরক্ষণ করুন।

খাদ্যতালিকায় আঁশ বা ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার রাখুন যত বেশি সম্ভব। সালাদ, ফল, ইসুবগুলের ভুসি, নানারকম সবজি—এগুলো হলো উচ্চ আঁশের উৎস। এসব খাবার চর্বি হজমে বাধা দেয় এবং কোষ্ঠ পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে। এতে লাল মাংসের ক্ষতিকর টক্সিন অন্ত্র থেকে সরে যায়, খারাপ কোলেস্টেরলও দূর হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *